ইউটিউব থেকে যেভাবে আয় করবেন

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি
গুগলের অনেকগুলো প্রোডাক্টের মধ্যে একটি হচ্ছে ইউটিউব । আজকে আলোচনা করব আপনি ইউটিউব থেকে কিভাবে আয় করবেন । আমরা অনেকেই হয়ত জানি না যে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় । আবার হয়ত অনেকে জানি আয় করা কিন্তু কিভাবে করতে হয় সেটা জানি না।

 

 

ইউটিউব মূলত একটা ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম । কিন্তু এর পরিধি অনেক বিস্তর । এক গবেষণায় জানা গেছে ইউটিউবে এত পরিমাণ ভিডিও আছে যে কেউ যদি সব ভিডিও গুলো একটানা দেখতে চায় তাহলে তার ১০০০ হাজার বছর লেগে যাবে । এখানে আপনি সব ধরনের ভিডিও পাবেন ।

 

 

যেহেতু এখানে সব ধরনের ভিডিও পাওয়া যায় তাই এখানে ভিউয়ার সংখ্যাও অনেক বেশি স্বাভাবিকভাবে । পুরো বিশ্বব্যাপী আপনি ভিউয়ার এখানে পাবেন । তাই ইউটিউব বিজ্ঞাপনের একটি চমৎকার মাধ্যম । আপনি যদি চান আপনার কোম্পানি বিজ্ঞাপন বিশ্বের সবাই দেখুন তাহলে ইউটিউবের চাইতে আর ভাল মাধ্যম আপনি খুঁজে পাবেন না ।

 

 

আমরা যখন কোনো ইউটিউবের ভিডিও দেখে থাকি তখন দেখতে পাই ভিডিওর শুরুতে , মাঝখানে , এবং শেষে বিজ্ঞাপন এসে থাকে । এর পাশাপাশি ব্যানার , সাইডবার ইত্যাদি এড দেখে থাকি । এই এডগুলো মূলত ইউটিউব দিয়ে থাকে টাকার বিনিয়ম ।

 

 

এখন কথা হচ্ছে তাহলে সব  ভিডিওতে কেন এড দেখায় না ? ইউটিউবের এড আপনার চ্যালেনে দেখাতে চাইলে আপনাকে তাদের মিনিমাম শর্ত ফিলাপ করতে হবে । আর সেটা হচ্ছে একবছরের মধ্যে ৪ হাজার ঘণ্টা ওয়াচ টাইম , এবং ১ হাজার সাবস্ক্রাইবার পেতে হবে ।

 

 

যদি আপনি এই শর্তটা পূরণ করতে পারেন তাহলে আপনি চাইলে আপনার চ্যানেলে মনেটাইজেশন চালু করতে পারবেন । এরপর থেকে আপনার ভিডিও গুলোতে এড দেখাবে । আর এই এডের মাধ্যমে আপনি চাইলে টাকা আয় করতে পারেন । কি পরিমাণ ভিউয়ার হলে কত টাকা আয় করা যায় সেটা নিয়ে আমি অন্য একটা আর্টিক্যালে বিস্তারিত আলোচনা করব ।

 

 

এজন্য আপনারা লক্ষ্য করবেন অনেক প্রতিষ্ঠান তাহলে পেইড কোর্স গুলো ইউটিউবে আপলোড  দিচ্ছে । অবশ্যই তাদের ফিন্যান্সিয়াল সুবিধা না পেলে কখনোই ইউটিউবে আপলোড দিত না । এছাড়া আপনি যেকোনো জিনিস শিখতে চাইলে ইউটিউব হতে পারে খুবই ভাল একটা প্লাটফর্ম । বিভিন্ন কন্টেন্ট ক্রিয়েটররা বিভিন্ন ধরনের সৃজনশীল ভিডিও দিয়ে টাকা আয় করছে ।

 

 

আপনি যে বিষয়ে পারদর্শী সে বিষয় সংক্রান্ত ভিডিও দিয়ে চাইলে টাকা আয় করতে পারেন । তবে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে যাতে আপনার ভিডিও টা ইউনিক হয় । কারণ আপনি কখনোই অন্য কারো ভিডিও কপি করে আপলোড দিয়ে সেখান থেকে টাকা আয় করতে পারবেন না । বরং কপিরাইট ক্লেইম পাবেন ।

 

 

পরিশেষে বলতে চাই ইউটিউব হচ্ছে অনেক ধৈর্যের জায়গা । এখানে আপনাকে হতাশ হলে চলবে না । আপনি আপনার মত কাজ করে যেতে থাকবেন , একদিন আপনি সফল হবেন ইনশাল্লাহ । আরও একটা জিনিস আপনাকে মাথায় রাখতে হবে সফলতার কোনো সর্টকাট রাস্তা নেই । তাই আপনি কখনোই সর্টকাট রাস্তা খুঁজতে যাবেন না তাহলে সেটা বিপরীত ফলাফল নিয়ে আসতে পারে আপনার জন্য ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *